Primary School Teacher Exam Final Suggestions

Primary School Teacher Exam Final Suggestions. Primary School Assistant Teacher Exam Suggestions And Book List 2019, Primary Exam Suggestions And Book List, Primary School Teacher Exam Suggestion 2019, Primary School Teacher Book List 2019, Primary School Assistant Teacher Book List BD, Book List  of Primary School Teacher Exam 2019, Suggestions of  Primary School Assistant Teacher Exam 2019 are search option of Primary School Teacher Exam Suggestions And Book List

 

Join our Facebook Group Get job update & discuss about Job related Topics.

Like Our Page&Facebook Group

Primary School Teacher Previous Questions Solution is available below. We publish different educational post in our website. Exam question solution is one of the most important concern of our website. Primary School Teacher Job Circular update at dpe.gov.bd.

 

Directorate of Primary Education has published job circular on 01 categorizes post. It’s a lucrative job circular and it’s great chance to get job for job seeker. This job is perfect to build up a significant career. Those, who want to work,they should be taken out of this opportunity. Directorate of Primary Education is a renowned Government organization in Bangladesh.

 

Primary School Teacher Exam Marks Distribution:

Total Marks: 100

Exam Type: MCQ + Viva

MCQ Exam marks: 80  and Viva Marks: 20

No. of Question: 80 ( Every question is equal 1 mark)

Negative Mark: .25 for each wrong answer.

MCQ Exam Marks Distribution:

1. Bangla-20

2. English-20

3. Math-20

4. General Knowledge (GK)-20

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

Image may contain: text

বাংলদেশ পরিচিতি

✐ রাজধানী➟ ঢাকা
✐ বিভাগ ➟ 8 টি
✐ মেট্রোপলিটন➟ 7 টি
✐ জেলা➟ 64 টি
✐ উপজেলা➟ 487 টি
✐ পুলিশ থানা➟ 635 টি
✐ নৌ থানা ➟ 4 টি
✐ রেলওয়ে থানা➟ 21 টি
✐ ইউনিয়ন➟ 4,562 টি
✐ গ্রাম ➟ 87,191 টি
✐ মহল্লা➟ 6,016 টি
✐ মৌজা➟ 59,990 টি
✐ মুদ্রা ➟ টাকা
✐ সিটি কপোরেশন➟ 11 টি
✐ পৌরসভা➟ 320 টি
✐ মাতৃভাষা ➟ বাংলা
✐ দূতাবাস➟ 48 টি
✐ রেলস্টেশন➟ 505 টি
✐ ডাকঘর➟ 9,886 টি
✐ শিক্ষা বোর্ড➟ 10 টি
✐ সীমানা দৈর্ঘ্য➟ 4,68,480 কি মি

পৃথিবী পরিচিতি

✐ পৃথিবীর মোট রাষ্ট্র ২২৮ টি।
✐ পৃথিবীর স্বাধীন রাষ্ট্র ১৯৫ টি।
✐ পৃথিবীতে মোট মুসলিম রাষ্ট্র ৬৫ টি।
✐ OIC ভুক্ত মুসলিম রাষ্ট্র ৫৭ টি।
✐ সর্বশেষ স্বাধীন মুসলিম রাষ্ট্র ‘কসোভা’ (ইউরোপ)।
✐ পৃথিবীর মোট রাষ্ট্রসংখ্যার অনুপাতে মুসলিম রাষ্ট্রের হার
২৬%।
✐ পৃথিবীর মুসলিম জনসংখ্যা ১৪২ কোটি।
✐ পৃথিবীর জনসংখ্যার অনুপাতে মুসলিম জনসংখ্যার হার
২৩.১৮% ।
✐ জনসংখ্যার দিক দিয়ে বৃহত্তম মুসলিম রাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়া।
✐ জনসংখ্যার দিক দিয়ে ক্ষুদ্রতম মুসলিম রাষ্ট্র মালদ্বীপ।
✐ জনসংখ্যার দিক দিয়ে পৃথিবীর বৃহত্তম মুসলিম শহর করাচী
(পাকিস্তান)।
✐ মুসলিম সংখ্যালঘিষ্ঠ রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যে সবচে’বেশি
মুসলমান বাস করে ভারতে (১৬%)
✐ মোট জনসংখ্যার অনুপাতে বিভিন্ন মহাদেশের মুসলিম
জনসংখ্যার শতকরা হারঃ এশিয়া ২৪% ইউরোপ ১% আফ্রিকা
৫৯% উত্তর আমেরিকা ১.৫% দক্ষিণ আমেরিকা ০.৫০%

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত চুক্তি

বাংলাদেশ – ভারত সীমান্ত চুক্তি বিল পাস হয়ঃ ➟ ৬ মে
২০১৫ (রাজ্যসভায়) ➟ ৭ মে ২০১৫ (লোকসভায়)
ভুল শুধরে আবার পাশ হয় ১১মে ২০১৫। ১০০তম সংশোধনী ছিল
কিন্তু ১১৯তম হবে।
বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় বাংলাদেশ ➟ ভারত সীমান্ত
চুক্তি অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদিত হয় ➟ ২৫ মে ২০১৫
স্থল সীমান্ত চুক্তি ➟ ১৯৭৪ ও ২০১১ সালের প্রটোকল
অনুমোদনের দলিল বিনিময় হয় ৬জুন, ২০১৫।
আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যকর ➟ ৩১ জুলাই ২০১৫।
বাংলাদেশ-ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল
➟ ১৬ মে ১৯৭৪।
বাংলাদেশের ভেতর ভারতের ১১১টি ছিট মহলের আয়তন ➟
১৭,১৫৮ একর।
ভারতের ভেতর বাংলাদেশের ৫১টি ছিট মহলের আয়তন ➟
৭,১১০ একর।
৩১ জুলাই ২০১৫ মধ্যরাতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্য
আনুষ্ঠানিকভাবে ছিটমহল বিনিময়ের মাধ্যমে উভয় দেশের
মানচিত্র থেকে ছিটমহল নামের শব্দটি উঠে যায়।
অচিহ্নিত সীমানা ৬.৫ কি.মি।
সীমান্তের মধ্যে চিহ্নিত সীমান্ত ৪.৫ কি.মি।
অচিহ্নিত রয়ে গেছে বিলোনিয়া সেক্টরে মুহুরীর চরের শুধু
২কি.মি সীমানা।
অপদখলীয় জমি ৫০৪৪.৭২ একর।
বাংলাদেশ পায় ৬টি স্থানে ২২৬৭. ৬৮২ একর।
ভারত পায় ১২টি স্থানে ২৭৭৭.০৩৮ একর।
মুজিব- ইন্দিরা চুক্তি (স্থল সীমান্ত চুক্তি) স্বাক্ষরিত হয়
১৬ মে, ১৯৭৪।
বাংলাদেশে সংসদে পাশ হয় ২৩ নভেম্বর ১৯৭৪।
(সংবিধানের ৩য় সংশোধনী)

নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ

নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশঃ বাংলাদেশ
বিশ্বব্যাংক কর্তৃক স্বীকৃতি লাভঃ ১ জুলাই ২০১৫
বিশ্বব্যাংক এর স্তর বিভাগঃ
১) নিম্ন আয়ের দেশ = মাথাপিছু আয় ১০৪৫ ডলার বা তার নিচে
২) নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ= মাথাপিছু আয় ১০৪৬ থেকে ৪১২৫
ডলার
৩) উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ = মাথাপিছু আয় ৪১২৬ থেকে ১২৭৩৬
ডলার
৪) উচ্চ আয়ের দেশ = মাথাপিছু আয় ১২৭৩৬ ডলারের বেশি
বিশ্বব্যাংকের তালিকা অনুযায়ী বর্তমানে, ১) নিম্ন আয়ের
দেশ = ৩১ টি ২) নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ= ৫১ টি ৩) উচ্চ মধ্যম
আয়ের দেশ = ৫৩ টি ৪) উচ্চ আয়ের দেশ = ৮০ টি
বিশ্বব্যাংকের এবারের রিপোর্টে,
• নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত=
বাংলাদেশ, কেনিয়া, মিয়ানমার, তাজিকিস্তান।
• উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উচ্চ আয়ের দেশে উন্নীত =
আর্জেন্টিনা, হাঙ্গেরি, ভেনিজুয়েলা, সেচেলেস।
বিশ্বব্যাংকের এবারের রিপোর্টে,
• সবচেয়ে কম মাথাপিছু আয়ের দেশ = মালায়ি
• সবচেয়ে বেশি মাথাপিছু আয়ের দেশ = মোনাকো
বাংলাদেশ এখনো স্বল্পোন্নত দেশ (LDC) তালিকাতেই আছে।
LDC থেকে বের হতে হলে তিনটি সূচক অতিক্রম করতে হবেঃ
১) অর্থনীতির নাজুকতার সূচক
২) মানব উন্নয়ন সূচক
৩) মাথাপিছু আয়ের সূচক


————————–

জাতীয় বাজেট ২০১৫-১৬

১) বাজেট ঘোষণা ৪ জুন ২০১৫; বাজেট কার্যকর ১ জুলাই ২০১৫
থেকে।
২) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন দ্বিতীয়
মেয়াদের জন্য নির্বাচিত সরকারের এটি ২য় বাজেট।
৩) বাংলাদেশে ঘোষিত ৪৫তম বাজেট।
৪) আওয়ামীলীগ সরকারের ১৬তম বাজেট।
৫) অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিতের ৯ম বাজেট (২০০৯-১০
অর্থবছর থেকে ২০১৫-১৬ অর্থবছর; ১৯৮২-৮৩ ও ১৯৮৩-৮৪]
এক নজরে জাতীয় বাজেট ২০১৫-১৬
১) মোট বাজেট ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা।
২) জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ।
৩) মূল্যস্ফীতি ৬.২ শতাংশ।
৪) এডিপি ৯৭,০০০ কোটি টাকা।
২০১৫-১৬ বাজেটে করমুক্ত আয়সীমা
১) ব্যক্তিশ্রেণীঃ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা।
২) নারী ও ৬৫ বছরের অধিক বয়স্কঃ ৩ লাখ টাকা।
৩) প্রতিবন্ধী ব্যক্তিঃ ৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা।
৪) গেজেটভূক্ত মুক্তিযোদ্ধা করদাতাঃ ৪ লাখ ২৫ হাজার টাকা।
২০১৫-১৬ বাজেটে বরাদ্দপ্রাপ্ত বিভিন্ন বিভাগ/খাত
১) সর্বোচ্চ বরাদ্দ- অর্থ বিভাগ ৯১,৪৪৬ কোটি টাকা।
২) সর্বোচ্চ বরাদ্দ রাখা হয়েছে জনপ্রশাসন খাতে ৫৬,৬৯৬ কোটি টাকা।
৩) কৃষিখাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৯,৯৭৯ কোটি টাকা।
৪) শিক্ষা প্রযুক্তি খাতে বরাদ্দ ৩৪,৩৭০ কোটি টাকা।
৫) স্বাস্থ্য খাতে ১২,৬৯৫ কোটি টাকা।
৬) প্রতিরক্ষাখাতে বরাদ্দ ১৮,৩৮৩ কোটি টাকা।
৭) যোগাযোগ ও পরিবহন খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২৮,৭০০ কোটি টাকা।

২০১৫-১৬ বাজেটে বিভিন্ন খাতের অবদান

১) কৃষি খাতের অবদানঃ ১৫.৯৬% (সাময়িক)
২) শিল্প খাতের অবদানঃ ৩০.৪২% (সাময়িক)
৩) সেবা খাতের অবদানঃ ৫৩.৬২% (সাময়িক)
৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা
মেয়াদকাল- ১ জুলাই ২০১৫ থেকে জুন ২০২০; লক্ষ্যমাত্রা – ৬টি।
যথা-
১) কারিগরি এবং প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন মানবসম্পদ গড়ে
তোলা।
২) বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও যোগাযোগ খাতে অবকাঠামোখাতে
সীমাবদ্ধতা দূর।
৩) কৃষিভিত্তিক শিল্পসহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাতের উন্নয়ন
কৌশল নির্ধারণ।
৪) আইসিটি-স্বাস্থ্য-শিক্ষা¬ সংক্রান্ত সেবা রপ্তানিতে
সুনির্দিষ্ট নীতিকৌশল প্রণয়ণ।
৫) সরকারী-বেসরকারী বিনিয়োগ গতিশীলতা আনয়ন।
৬) রপ্তানিতে গতিশীলতা ও পণ্যের বৈচিত্রায়ণ।
Some Targeted Rates in 7th Five Year Plan–Unemployment – 0%,
GDP – 8%, Poverty rate – 16% , Export – 5500 Crore US Dollar
————————–

আমদানি-রপ্তানি

১) বেশি আমদানিঃ চীন, (ভারত ২য়- এশিয়ার ১ম)
২) বেশি রপ্তানিঃ যুক্তরাষ্ট্র
৩) সর্বোচ্চ বিনিয়োগকারী দেশঃ যুক্তরাজ্য (১ম) , দক্ষিন
কোরিয়া (২য়)
৪) বিশ্বের ৪৪টি দেশে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক মিশন রয়েছে।
৫) রপ্তানি আয়ে/বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী ১ম তৈরি পোশাক, ২য় নীটওয়্যার।
৬) ওষুধ রপ্তানি করে ১৬০টি দেশে।
৭) যুক্তরাষ্ট্র পণ্য আমদানিতে শুল্ক ও কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার প্রথা চালু করে ১লা জানুয়ারি ১৯৭৬ সালে।
৮) যুক্তরাষ্ট্র জিএসপি সুবিধা স্থগিত করে ২৭ জুন ২০১৩।
৯) স্থগিতাদেশ কার্যকর হয় ২ সেপ্টেম্বর ২০১৩।
১০) GSP ফিরে পেতে বাংলাদেশকে USA শর্ত দিয়েছে- ১৬টি।
১১) যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে
বাংলাদেশ ৩য়
১২) মুক্তবাজার অর্থনীতি বিশ্বব্যাপী চালু হয় ২০০৫ সাল থেকে।
১৩) বাংলাদেশের তৈরী পোশাক শিল্পকে শিশু শ্রমিকমুক্ত ঘোষণা করা হয় ১ নভেম্বর ১৯৯৬ সালে।
১৪) বাংলাদেশে ইপিজেড ১০টি (৮টি সরকারি ও ২টি বেসরকারি)
১৫) রেমিট্যান্স অর্জনে বাংলাদেশের অবস্থান ৮ম।
১৬) সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স পায় সৌদি আরব/মধ্যপ্রাচ্য থেকে।
১৭) সবচেয়ে বেশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে যুক্তরাষ্ট্র থেকে।
১৮) সর্বাধিক জনশক্তি রপ্তানি হয় সৌদি আরবে।
১৯) প্রবাসীদের প্রেরিত অর্থের (রেমিট্যান্স) পরিমাণ ১০৮ কোটি ৭৬ লাখ ডলার। (নভেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত)

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ

১) বীরত্বসূচক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ৬৭৭ জন – বীরশ্রেষ্ঠ
৭ জন – বীর উত্তম ৬৯ জন – বীর বিক্রম ১৭৫ জন – বীর প্রতীক ৪২৬ জন
২) মুক্তিযুদ্ধের সময় সমগ্র দেশকে মোট ১১টি সেক্টরে বিভক্ত করা হয়।- চট্টগ্রাম ১ নং সেক্টর- ঢাকা ২ নং সেক্টর – মুজিবনগর ৮ নং সেক্টর
৩) মুক্তিযুদ্ধের সময় সমগ্র দেশকে মোট ৬৪টি সাব-সেক্টরে বিভক্ত করা হয়।
৪) জীবিত সেক্টর কমান্ডার ৪ জন।
৫) ভারতে শরণার্থী শিবির স্থাপন করা হয় ১৪১টি।
৬) মুক্তিযুদ্ধে মোট নারী মুক্তিযোদ্ধা ২০৩ জন।
৭) বীরাঙ্গনা স্বীকৃতি পেয়েছেন ৪১জন (অক্টোবর ২০১৫)।
৮) সবচেয়ে বেশি নারী মুক্তিযোদ্ধা দিনাজপুর থেকে ২১ জন।
৯) বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত মহিলা ২ জন (ড. সেতারা বেগম ও তারামন বিবি)।
১০) ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয় ইউনেস্কোর’র ৩০ তম অধিবেশনে।

 
জনসংখ্যা, আদমশুমারী ও উপজাতি সংক্রান্ত তথ্যাদি

১) মোট জনসংখ্যা ১৫.৭৯ কোটি
২) জনসংখ্যার ঘনত্ব ১০৩৫ জন (প্রতি বর্গ কিলোমিটারে)
৩) জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৬%
৪) নারী ও পুরুষের অনুপাত ১০০:১০৪.৯
৫) গড় আয়ু ৭০.৭ বছর
৬) স্বাক্ষরতার হার (৭+ বছর),২০১৫: ৬২.৩%; পুরুষ ৬৫.০% ও মহিলা ৫৯.৭%
৭) মাতৃমৃত্যুর হার ১.৯৭%
৮) দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে ৩১.৫%
৯) চরম দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে ১৭.৬%
১০) শিশু মৃত্যুহার [এক বছরের কমবয়সী (প্রতি হাজার জীবিত জন্মে)] ৩৩ জন
১১) আদমশুমারি ৫টি (কৃষিশুমারি ৪টি)
১২) সরকারিভাবে স্বীকৃত দেশের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সংখ্যা ৪৮টি
১৩) উপজাতীয় সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট ২টি
১৪) উপজাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ১টি
সূত্রঃ বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৫
————————–

মাথাপিছু আয়, শ্রমশক্তি ও কর্মসংস্থান

১) মাথাপিছু আয় ১৩১৪ মার্কিন ডলার বা ১,০২,০২৬ টাকা।
২) করমুক্ত আয়সীমা ২,৫০,০০০ টাকা।
৩) জিডিপি’র প্রবৃদ্ধি ৭% ।
৪) মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা ৬.২ শতাংশ।
৫) ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৩৬
তম (নমিনাল মূল্যের ভিত্তিতে ৫৮তম)।
৬) বর্তমানে মোট মাথাপিছু ঋণের পরিমাণ ৪০০ ডলার
(বৈদেশিক ঋণ ১৭০ ডলার)।
————————–
দারিদ্র্য সমাচার
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) গড় দারিদ্র্যের হার – ৩০.৭%
২) নিম্ম দারিদ্র্যরেখায় বাস করে মোট জনসংখ্যার – ১৭.৬%
৩) উচ্চ দারিদ্র্যরেখায় বাস করে মোট জনসংখ্যার – ৩১.৫%
৪) সবচেয়ে কম দরিদ্র মানুষ অধ্যুষিত বিভাগ – সিলেট (২৫.৫%)
৫) সবচেয়ে বেশি দরিদ্র মানুষ অধ্যুষিত বিভাগ – রংপুর (৪২.%)
৬) সবচেয়ে বেশি দরিদ্র মানুষ অধ্যুষিত জেলা – কুড়িগ্রাম
(৬৩.৭%
৭) সবচেয়ে কম দরিদ্র মানুষ অধ্যুষিত জেলা – কুষ্টিয়া (৩.৬%)
সূত্রঃ বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর দারিদ্র্য মানচিত্র-
২০১১ সালের আদমশুমারি ও গৃহগণনা।
৮) দারিদ্র্যের হার- ২৪%
সূত্রঃ জনসংখ্যা ও জনতাত্ত্বিক সূচক -২০১৩ (প্রকাশঃ ১৪
জুলাই ২০১৫; প্রকাশকঃ বিবিএস )
৯) সর্বাধিক দরিদ্র মানুষের দেশ – ভারত (৩৩%); বাংলাদেশে
৬%।
১০) দারিদ্র্য ঘনত্বে র্শীষ দেশ – কঙ্গো প্রজাতন্ত্র।
সূত্রঃ বিশ্বব্যাংক প্রতিবেদন- ২০১৪
————————–
বাংলাদেশের অর্থনীতি
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) বাংলাদেশে VAT-এর হার ১৫%।
২) কর ২ প্রকারঃ ক) প্রত্যক্ষ কর ও খ) পরোক্ষ কর।
৩) বাংলাদেশে এ পর্যন্ত ঘোষিত বাজেট ৪৫টি।
৪) বাংলাদেশে অর্থবছর ধরা হয় ১লা জুলাই থেকে ৩০ জুন।
৫) জাতীয় সংসদে বাজেট পাশ হয় ৩০ জুন।
৬) বাংলাদেশে প্রথম বাজেট পাশ হয় ৩০ জুন ১৯৭২ সালে।
৭) সবচেয়ে বেশি বাজেট পাশ করেন অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান
(১২টি), ২য় সর্বোচ্চ এসএএমএস কিবরিয়া (৬টি)।
৮) রাষ্ট্রপতি হিসেবে বাজেট পেশ করেছেন ১ জন (রাষ্ট্রপতি
জিয়াউর রহমান)।
﹌﹌﹌﹌﹌﹌ f বাজেট দুই প্রকার : ক) উদ্বৃত্ত বাজেট ও খ)
ঘাটতি বাজেট।
১০) বাংলাদেশের বাজেট ঘাটতি বাজেট।
১১) বাজেটের দুটি অংশ : ক) রাজস্ব বাজেট ও খ) উন্নয়ন
বাজেট।
১২) তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বাজেট ৩টি।
১৩) সামরিক সরকারের আমলে বাজেট ৮টি।
১৪) রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারের আমলে বাজেট ৭টি।
১৫) মূল্য সংযোজন কর আইন জাতীয় সংসদে পাশ হয় ১০ জুলাই
১৯৯১ সালে।
১৬) সরকারের মোট আয়ের ৮০ শতাংশের বেশি আসে রাজস্ব
আয় থেকে।
১৭) রাজস্ব আদায়ে খাতভিত্তিক সবচেয়ে বেশি অবদান
আয়করের (৩২%), ২য় সর্বোচ্চ অবদান মূল্য সংযোজন করের (২৫%)।
১৮) সরকারের ব্যয় ২ ধরণের : ক) উন্নয়ন ব্যয় ও খ) অনুন্নয়ন ব্যয়।
————————–
বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) শিক্ষানীতি প্রণীত হয়েছে ৩টি
২) শিক্ষা কমিশন ৬টি [সর্বশেষ কবির চৌধুরী শিক্ষা কমিশন
(২০০৯)]
৩) শিক্ষার স্তর ৪টি
৪) সারাদেশব্যপী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা
৬৩৮৬৫টি
৫) নিরক্ষরমুক্ত জেলা ৭টি
৬) প্রাথমিক শিক্ষার বয়সসীমা ৬-১১ বছর
৭) পরমাণু চিকিৎসা কেন্দ্র ১৩টি
৮) সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ৩৮টি (প্রস্তাবিত রবীন্দ্র
বিশ্ববিদ্যালয় সহ)
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১০) সরকারি মেডিকেল কলেজ ৩১টি (তথ্যসূত্র : প্রথম আলো)
১১) মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ৩টি (প্রস্তাবিত রাজশাহী
মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় সহ)
————————–
বিভিন্ন রিপোর্ট-সমীক্ষা-সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) মানব উন্নয়ন রিপোর্ট ১৪২তম (শীর্ষ দেশ নরওয়ে, সর্বনিম্ন
দেশ নাইজার)
২) জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সেনা প্রেরণ ১ম
৩) গণতন্ত্র সূচকে বাংলাদেশ ৮৫তম
৪) বাংলাদেশ এলডিসি চেয়ারম্যান নির্বাচিত (২০১৫-২০১৮
মেয়াদে)
৫) বিশ্ব সক্ষমতা সূচকে ১০৭তম
৬) মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারে ১৪৯তম
৭) বাল্যবিয়ে প্রবণ তালিকায় বিশ্বে ৪র্থ (এশিয়ায় ১ম)
৮) বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে ২৩তম
৯) খাদ্য সংগ্রহের দিক থেকে ১৬তম
১০) পাট রপ্তানিতে ১ম
১১) আলু উৎপাদনে ৭ম
১২) আম উৎপাদনে ৭ম
১৩) পেয়ারা উৎপাদনে ৮ম
১৪) মাছ উৎপাদনে ৫ম
১৫) মিঠা পানির মৎস্য উৎপাদনে ৪র্থ (বাংলাদেশের চেয়ে
এগিয়ে রয়েছে চীন, ভারত ও মিয়ানমার)
১৬) বছরে ৩৫ লাখ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হয়
১৭) ধান উৎপাদনে ৪র্থ
১৮) চা বাগান ১৬৬ টি
১৯) চা পানে ১৬তম
২০) চিনিকল ১৫টি
২১) ফিফা র্যাংকিংয়ে ১৮২তম
২২) দুর্নীতি সূচকে ১৪তম
২৩) ইন্টারনেট ব্যবহারে ৬৩তম
২৪) OCR চালু করতে ৩৭তম
২৫) লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণে ৬৮তম
২৬) বাংলা ভাষা ব্যবহারে ৭ম
২৭) বাংলাদেশী পন্য শুল্ক মুক্ত সুবিধা পায় ৪৯টি দেশে
২৮) ঢাকা মেগাসিটিতে ১১তম
২৯) বাংলাদেশে ৫৩ টি দেশের ৬৯টি মিশন রয়েছে
৩০) বিদ্যুৎ কেন্দ্র ১০০টি
৩১) স্থলবন্দর ২২টি (সর্বশেষ শেওলা, বিয়ানীবাজার, সিলেট)
৩২) নদীবন্দর ২৪টি (সর্বশেষ ফরিদপুর ও ঘোড়াশাল)
৩৩) সমুদ্রবন্দর ৩টি (সর্বশেষ পায়রা, ১৯/১১/২০১৩)
৩৪) কয়লাখনি ৬টি (সর্বশেষ নওগাঁ)
৩৫) গ্যাসক্ষেত্র ২৬ (সর্বশেষ রূপগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ; ২১/৬/২০১৪)
৩৬) উৎপাদনরত গ্যাসক্ষেত্র ২০টি
৩৭) দেশে পাট কল ৩৮টি
৩৮) ১৯৭১ সালে পাট কল ছিল ৭৩টি
৩৯) মোট বস্ত্র কল ৬৫টি
৪০) সরকারি বস্ত্র কল ২৪টি
৪১) দেশে উৎপাদিত বস্ত্র স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে ৯%
৪২) দেশে একজন শ্রমিক এর সর্বনিম্ন বেতন ৫৫ ডলার
৪৩) মোট সিমেন্ট কারখানা ১৪ টি যার মধ্যে ৫ টি সরকারি
৪৪) জাহাজ নির্মাণ ও মেরামত কারখানা ৩টি
৪৫) অস্ত্র কারখানা ১টি (গাজীপুর)
৪৬) অর্থনৈতিক অঞ্চল (ইকোনমিক জোন) ১৭টি
৪৭) বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় বনভূমি- ২৮টি জেলায়
৪৮) সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ৮৩-১৩০টি
৪৯) বাংলাদেশের কর্মী রয়েছে- বিশ্বের ১৬০টি দেশে।
৫০) ২০১৫ সালে ব্রিটিশ আইনসভা নির্বাচনে বাংলাদেশী
অংশগ্রহণ করে- ১১জন।
৫১) ২০১৫ সালে ব্রিটিশ আইনসভা নির্বাচনে বাংলাদেশী জয়
লাভ করে- ৩ জন।
৫২) বৈশ্বিক সমৃদ্ধি সূচকে বিশ্বে ১০৩তম (সার্কভুক্ত দেশে ৪র্থ,
১ম শ্রীলংকা, শীর্ষ দেশ নরওয়ে)
৫৩) বিশ্ব সন্ত্রাসবাদ সূচকে ২৩তম (র্শীর্ষ দেশ ইরাক)
৫৪) ডুয়িং বিজনেস রিপোর্টে বিশ্বে ১৭৪তম (সার্কভুক্ত দেশে
৭ম, ১ম ভুটান; শীর্ষ দেশ সিঙ্গাপুর)
৫৫) বৈশ্বিক উদ্দ্যোক্তা সূচকে বিশ্বে ১২৫তম (সার্কভুক্ত
দেশে ৪র্থ, ১ম শ্রীলংকা; শীর্ষ দেশ যুক্তরাষ্ট্র)
————————–

গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি
১) সরকারি টিভি চ্যানেল ৩টি
২) বেসরকারি টিভি চ্যানেল ৪১টি
৩) দৈনিক প্রকাশিত পত্রিকা ৯০২টি
————————–
আগামীর বাংলাদেশ
১) বাংলাদেশকে দারিদ্র্য মুক্ত ঘোষণা করা হবে ২০২০
সালের মধ্যে।
২) ৬ষ্ঠ আদমশুমারি হবে ২০২১ সালে।
৩) সবার জন্য বিদ্যুৎ পৌঁছানোর লক্ষ্যমাত্রা ২০২১ সালের
মধ্যে।
————————–
ব্যাংক-বীমা ও মুদ্রাব্যবস্থা
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক ৬টি (সর্বশেষ বেসিক
ব্যাংক)
২) বিশেষায়িত ব্যাংক ৯টি (সর্বশেষ পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক)
৩) মোট ব্যাংক ৬৩টি
৪) তালিকাভুক্ত ব্যাংক ৫৬টি
৫) বিদেশি বেসরকারি ব্যাংক ৯টি
৬) ইসলামী ব্যাংক ৮টি
৭) বিদেশী ব্যাংক ৯টি
৮) বাংলাদেশ ব্যাংক এর সুদের হার ৫%
৯) বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৭
বিলিয়ন ডলার।
১০) বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের মেয়াদকাল ৪ বছর।
১১) বাংলাদেশ ব্যাংকের শাখা ১০টি। (সর্বশেষ ময়মনসিংহ
১৬ জানুয়ারি ২০১৩)
১২) বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পরিষদের সদস্য সংখ্যা
১০ জন।
১৩) বাংলাদেশে আইএমএফ-এর কার্যালয় বাংলাদেশ
ব্যাংকের ৫ম তলায়।
১৪) সরকারি মুদ্রা ৩টি। যথাঃ ১,২ ও ৫ টাকা।
১৫) ব্যাংক নোট ৬টি। যথাঃ ১০,২০,৫০,১০০,৫০
০ ও ১০০০ টাকা।
১৬) সরকারি নোট বের করে অর্থ মন্ত্রণালয়। এতে অর্থ সচিবের
স্বাক্ষর থাকে।
১৭) ব্যাংক নোট বের করে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং এতে
বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের স্বাক্ষর থাকে।
১৮) উপমহাদেশে প্রথম কাগজের মুদ্রা চালু হয় ১৮৫৭ সালে।
১৯) বাংলাদেশে প্রথম কাগজের নোট চালু হয় ৪ মার্চ ১৯৭২
সালে। (১ টাকা ও ১০০ টাকার নোট)
২০) সিকিউরিটি প্রিন্টিং কর্পোরেশন (বাংলাদেশ) লি.
প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮৮ সালে।
২১) উপমহাদেশে প্রথম কাগজের মুদ্রার প্রচলন করেন লর্ড
ক্যানিং।
————————–


পদক-পুরস্কার-সম্মাননা
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
১) ২০১৫ সালে একুশে পদক পান মোট- ১৫ জন
২) ২০১৫ সালে বাংলা একাডেমী পুরস্কার পান মোট- ৭ জন।
৩) ২০১৫ সালে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্যে
দেশের ৭ জন ব্যক্তিকে “স্বাধীনতা পুরস্কার ২০১৫” প্রদান করা
হয়। তবে ন্যাপের সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ
স্বাধীনতা পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেন।
• স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ : মানিক চৌধুরী (মরণোত্তর), মামুন
মাহমুদ (মরণোত্তর) ও শাহ এ এম এস কিবরিয়া (মরণোত্তর)
• সাহিত্য : অধ্যাপক আনিসুজ্জামান
• সংস্কৃতি : নায়করাজ আবদুর রাজ্জাক
• গবেষণা ও প্রশিক্ষণ : মোহাম্মদ হোসেন মণ্ডল
• সাংবাদিকতা : সন্তোষ গুপ্ত
৪) র্যামন ম্যাগসেসে পুরুস্কার ২০১৪ পাওয়া বাংলাদেশী –
সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। তিনি বাংলাদেশের পরিবেশ
সমিতি (বেলা-এর প্রধান নির্বাহী। তিনি এই পুরস্কারপ্রাপ্ত
১১তম বাংলাদেশী এবং ম্যাগসেসে বিজয়ী ৩য় নারী।
৫) ২০১৪ সালে ভারতের পদ্মভূষণ – বাংলাদেশের অধ্যাপক
আনিসুজ্জামান
৬) অনন্য সাহিত্য পুরস্কার ১৪১৯ – কাজী রোজি
৭) প্রথম নরী ও দ্বিতীয় বাংলাদেশী হিসেবে বিজনেস ফর
পিস অ্যাওয়ার্ড ২০১৪ – সেলিনা আহমেদ
৮) ফরচুন ম্যাগাজিন জরিপে বিশ্বের ৫০ প্রভাবশালীর
একমাত্র বাংলাদেশী – স্যার ফজলে হাসান আবেদ
৯) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাউথ সাউথ পুরস্কার গ্রহণ করেন
– ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ (দারিদ্র্য বিমোচনে অবদান)
১০) জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক
সংস্থা UNESCO এর Peace Tree (শান্তি বৃক্ষ) পুরস্কার : শেখ
হাসিনা (কিশোরী ও নারী শিক্ষায় অবদানের জন্য)
১১) The Championship of the Earth পুরস্কার পেয়েছেন মাননীয়
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ক্যাটাগরি: Policy Leadership)
১২) WHO-এর এক্সিলেন্স ইন পাবলিক অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল
সার্ক সাহিত্য পুরস্কার ২০১৫ : সেলিনা হোসেন
১৩) বঙ্গবিভূষন পদক (পশ্চিমবঙ্গ) : ফিরোজা বেগম
১৪) টানা ২য় বারের মত WSIS পুরস্কার ২০১৫ লাভ করেন :
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের Access to

অর্থনৈতিক সমীক্ষা -২০১৫।
﹌﹌﹌﹌﹌﹌
1) মোট জনসংখ্যাঃ ১৫.৭৯ কোটি
2) জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারঃ ১.৩৬ %
3) পুরুষ:মহিলা :: ১০৪.৯ : ১০০
4) জনসংখ্যার ঘনত্তঃ ১,০৩৫ জন
5) শিশু মৃত্যু হারঃ ৩৩ জন (এক বছরের কম বয়সী)
6) প্রত্যাশিত গড় আয়ুঃ ৭০.৭ বছর
7) সাক্ষরতার হারঃ ৬২.৩%
8) দারিদ্রের নিম্নসীমাঃ ১৭.৬%
9) জি.ডি.পিঃ ১৫,১৩,৬০০ কোটি টাকা (চলতি মূল্য)
10) মাথাপিছু জি.ডি.পিঃ ১,২৩৫ (মার্কিন ডলার)/ ৯৫,৮৬৪
টাকা
11) মাথাপিছু আয়ঃ ১,৩১৪ (মার্কিন ডলার)/ ১০২০২৬টাকা
12) মোট তফসিলি ব্যাংকঃ ৫৬ টি
13) আর্থিক প্রতিষ্ঠানঃ ৩১ টি (নন ব্যাংক)
14) জি.ডি.পি প্রবৃদ্ধিঃ ৭.০০%
15) মূল্যস্ফীতিঃ ৬.২%
16) কৃষি খাতের অবদানঃ ১৫.৯৬% (সাময়িক)
17) শিল্প খাতের অবদানঃ ৩০.৪২% (সাময়িক)
18) সেবা খাতের অবদানঃ ৫৩.৬২% (সাময়িক)
19) সর্বোচ্চ বিনিয়োগকারী দেসঃ যুক্তরাজ্য (১) , দক্ষিন
কোরিয়া (২)
20) বেশী আমদানীঃ চীন, ভারত(২য়- এশিয়ার ১ম)
21) বেশী রপ্তানীঃ যুক্তরাষ্ট্র

**অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৮
————————————————–
১। মোট জনসংখ্যা = ১৬ কোটি ৮ লক্ষ।
২। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার = ১.৩৭%
৩। পুরুষ – মহিলা অনুপাত = ১০০.৩ঃ১০০
৪। জনসংখ্যার ঘনত্ব = ১০৯০ জন (বর্গ কি:মি)
৫। এক বছরের কম বয়সী শিশু মৃত্যুহার = ২৮ জন (প্রতি হাজারে)
৬। প্রত্যাশিত গড় আয়ু = ৭১.৬ বছর
৭। সাক্ষরতার হার = ৭১%
৮। দারিদ্র্যের ঊর্ধ্বসীমা = ২৪.৩%
৯। দারিদ্র্যের নিম্নসীমা = ১২.৯%
১০। GDP প্রবৃদ্ধির হার = ৭.৬৫%
১১। চলতি মূল্যে মাথাপিছু আয় = ১৭৫২ মার্কিন ডলার
১২। চলতি মূল্যে মাথাপিছু GDP = ১৬৭৭ মার্কিন ডলার
১৩। মূল্যস্ফীতি = ৫.৮৩% (জুলাই ১৭- এপ্রিল ১৮)
১৪। মোট ব্যাংক = ৫৭ টি
> রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক ৬ টি,
>বিশেষায়িত ব্যাংক ২ টি,
>বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক ৪০ টি,
>বৈদেশিক ব্যাংক ৯ টি
>ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান ৩৪ টি
>মোট বীমা ৭৮ টি, সরকারি জীবন বীমা ১ টি, সাধারণ বীমা ১ টি, বিদেশি বীমা ১টি।
১৫। সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স আসে = সৌদিআরব থেকে
১৫। সবচেয়ে বেশি রপ্তানি করা হয় = যুক্তরাষ্ট্র
১৬। সবচেয়ে বেশি আমদানি করা হয় = চীন
১৭। ঔষধ রপ্তানি করা হয় = ১৪৫ টি দেশে
১৮। মোট স্থাপিত বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা = ১৩,৮৪৬ মেগাওয়াট
১৯। মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন = ৩৫,৪৭৪ মিলিয়ন কিলোওয়াট -ঘণ্টা
২০। আবিষ্কৃত মোট গ্যাসক্ষেত্র = ২৭ টি
২১। প্রাকৃতিক গ্যাসের প্রাথমিক মোট মজুদ = ৩৯.৯ ট্রিলিয়ন ঘনফুট
২২। প্রাকৃতিক গ্যাসের উত্তোলনযোগ্য মজুদ = ২৭.৭৬ ট্রিলিয়ন ঘনফুট
২৩। মোবাইল গ্রাহক = ১৪.৭ কোটি
২৪। ইন্টারনেট ইউজার = ৮.০৮ কোটি
২৫। বাংলাদেশ বেশি বৈদেশিক সাহায্য পায় = জাপান থেকে
২৬। সংস্থা হিসেবে বাংলাদেশ বেশি বৈদেশিক সাহায্য পায় = IDA থেকে
২৭। GDP তে অবদান (সাময়িক)
কৃষি = ১৪.১০%
শিল্প = ৩৩.৭১%
সেবা = ৫২.১৮%
[N.B. পরিসংখ্যান ব্যুরোর রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছর]।
***২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের বাজেট:
¤ তম: ৪৮ তম বাজেট (একটি অন্তবর্তীকালীন বাজেটসহ)
¤ বাজেট ঘোষণা/উপস্থাপন করা হয়: ০৭ জুন, ২০১৮।
¤ বাজেট পাশ : ২৮ জুন, ২০১৮।
¤ বাজেটের আকার : ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা।
¤ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (ADP) বরাদ্ধ : ১লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা।
¤ জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছে : ৭.৮০%
¤ মূল্যস্ফীতির হার ধরা হয়েছে : ৫.৬%
¤ সবচেয়ে বেশি বাজেট বরাদ্দ জনপ্রশাসন : ৮৩, ৫০৯ কোটি
¤ দ্বিতীয় সবচেয়ে বেশি বাজেট বরাদ্দ শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে = ৬৭,৯৪৪ কোটি
¤ করমুক্ত আয়সীমা: সাধারণ সীমা (ব্যক্তি শ্রেণি) : ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।
বিশ্বকাপ ফুটবল -২০১৮

 ♥চ্যাম্পিয়ন: ফ্রান্স (গোল লাইন ৪-২, এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। এ পর্যন্ত মোট ৮টি দেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।);
♠রানার্স আপ: ক্রোয়েশিয়া (ক্রোয়েশিয়া ইউরোপের একটি বলকান রাষ্ট্র);
♦তৃতীয় স্থান: বেলজিয়াম;
♦ফেয়ার প্লে পুরস্কার: স্পেন;
★বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচের স্টেডিয়াম: লুঝকিনি স্টেডিয়াম, মস্কো;
★গোল্ডেন বল (আসরের সেরা খেলোয়ার): লুকা মড্রিচ (ক্রোয়েশিয়া);
★গোল্ডেন বুট (আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা): হ্যারি কেইন (ইংল্যান্ড, ৬ গোল);
★গোল্ডেন গ্লাভস (আসরের সেরা গোলরক্ষক): থিওবাথ কর্তোয়া (বেলজিয়াম);
★সিলভার বল (আসরের সেরা ইমার্জিং প্লেয়ার): কিলিয়ান এমবাপ্পে (ফ্রান্স);
★ফাইনালের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ: গ্রিজম্যান (ফ্রান্স);
♣এবারের আসরের প্রথম গোল: ইউরি গাজিনস্কি (রাশিয়া);
♣এবারের আসরে মোট হ্যাট্রিক: ২টি [১ম- ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো (স্পেনের বিপক্ষে), ২য়- হ্যারি কেইন (পানামার বিপক্ষে)];
♣প্রথমবারের মতো সংযোজন: V.A.R. (Video Assistant Referee);
♣বিশ্বকাপ মাসকট: জাবিভাকা (ZABIVAKA), অর্থ- জংলী নেকড়ে;
♣বিশ্বকাপ থিম সং: Live it up (শিল্পী- নিকি জেম);
♣এবারের আসর: ২১তম (আয়োজক- রাশিয়া);
♣মোট যতটি শহরে খেলা অনুষ্ঠিত হয়: ১১টি;
♣মোট ম্যাচের সংখ্যা: ৬৪টি;
♣মোট অংশগ্রহণকারী দেশ: ৩২টি (এদের মধ্যে মুসলিম দেশ ৭টি);
♣প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ: ২টি দেশ (পানামা ও আইসল্যান্ড);
♣দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলা একমাত্র এশিয় দেশ: জাপান;
♣বিশ্বকাপের বলের নাম: টেলস্টার ১৮ (প্রথম রাউন্ড পর্যন্ত) এবং টেলস্টার মেচতা (দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে ফাইনাল পর্যন্ত);
♥আগামী ২০২২ (২২তম) বিশ্বকাপ: আয়োজক দেশ- কাতার (মোট ৩২টি দেশ অংশ নেবে);
♥পরবর্তী ২০২৬ (২৩তম) বিশ্বকাপ: আয়োজক দেশ- মেক্সিকো, যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা (মোট ৪৮টি দেশ অংশ নেবে)
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে সবমিলিয়ে ৫৭+৬ = ৬৩ টি ব্যাংক আছে। কোন ধরণের ব্যাংক কতটি চলুন জেনে নেই। বর্তমানে দেশে প্রধানত দুই ধরনের ব্যাংক রয়েছে।
1. তফসিলী ব্যাংক (৫৭)
2. অ-তফসিলী ব্যাংক (৬)
তফসিলী ব্যাংকঃ যে সকল ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের শর্তসমূহ মেনে নিয়ে এর তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয় তাকে তফসিলী ব্যাংক বলে । তফসিলী ব্যাংকগুলো ব্যাংক কোম্পানী অ্যাক্ট, ১৯৯১ (সংশোধিত ২০০৩) এর অধীনে কাজ করে। দেশে বর্তমানে ৫৭ টি তফসিলী ব্যাংক আছে। তফসিলী ব্যাংকগুলো নিম্নরুপ হয়ে থাকে।
1. বাণিজ্যিক ব্যাংক (৫৫)
2. বিশেষায়িত ব্যাংক (২)
বাণিজ্যক ব্যাংকঃ যে ব্যাংক জনগনের সঞ্চিত অর্থ আমানত হিসেবে রাখে এবং ব্যবসা-বাণিজ্যে ও শিল্প প্রতিষ্ঠানকে স্বল্প মেয়াদী ঋণ দেয় তাকে বাণিজ্যিক ব্যাংক বলে। এসব ব্যাংককে স্বল্প মেয়াদী ঋণের ব্যবসায়ীও বলা হয়। বাংলাদেশে দুই ধরনের বাণিজ্যিক ব্যাংক আছে।
1. রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক (৬)
2. ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক (৪০)
3. বিদেশী বাণিজ্যিক ব্যাংক (৯)
রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকঃ যে সকল বাণিজ্যিক ব্যাংক সরকারী উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত বা সরকার কর্তৃক জাতীয়করণকৃত তাকে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক বলে। রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক ৬ টি।
১। সোনালী ব্যাংক লিমিটেড
২। অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড
৩। রূপালী ব্যাংক লিমিটেড
৪। জনতা ব্যাংক লিমিটেড
৫। বেসিক ব্যাংক লিমিটেড
৬। বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড
ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকঃ যে সকল বাণিজ্যিক ব্যাংক জনগনের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত এবং জনগন কর্তৃক পরিচালিত হয় তাকে ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক বলে। ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে মোট ৪০ টি। এগুলোকে আবার দুই ভাগে করা যায় ।
১। প্রথাগত ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক (৩২)
২। ইসলামী শরীয়াহ ভিত্তিক ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক (৮)
৩২ টি প্রথাগত ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকের তালিকা নিম্নরূপ।
১। ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড
২। ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড
৩। পূবালী ব্যাংক লিমিটেড
৪। ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড
৫। ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড
৬। এবি ব্যাংক লিমিটেড
৭। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
৮। উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড
৯। ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড
১০। মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক
১১। যমুনা ব্যাংক লিমিটেড
১২। প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড
১৩। স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড
১৪। ইস্টার্ণ ব্যাংক লিমিটেড
১৫। আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড
১৬। দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড
১৭। এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড
১৮। মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড
১৯। প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড
২০। সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড
২১। ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড
২২। বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড
২৩। ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড
২৪। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক লিমিটেড
২৫। এনআরবি ব্যাংক লিমিটেড
২৬। এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
২৭। মেঘনা ব্যাংক লিমিটেড
২৮। ফার্মারস ব্যাংক লিমিটেড
২৯। মধুমতি ব্যাংক লিমিটেড
৩০। সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এন্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড
৩১। মিডল্যান্ড ব্যাংক লিমিটেড
৩২। সীমান্ত ব্যাংক লিমিটেড
৮ টি ইসলামী শরীয়াহ ভিত্তিক ব্যক্তিমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকের তালিকা নিম্নরূপ।
১। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড
২। আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
৩। ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
৪। আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লিমিটেড
৫। শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
৬। এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট ব্যাংক অফ বাংলাদেশ লিমিটেড
৭। সোশ্যাইল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
৮। ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড
৯ টি বিদেশী বাণিজ্যিক ব্যাংকের তালিকা নিম্নরূপ।
১। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক লিমিটেড
২। হংকং সাংহাই ব্যাংকিং কর্পোরেশন (এইচএসবিসি)
৩। সিটিব্যাংক এনএ (ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন)
৪। কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলন
৫। স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া
৬। হাবিব ব্যাংক লিমিটেড
৭। ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান
৮। ওরি ব্যাংক
৯। ব্যাংক আলফালাহ্
বিশেষায়িত ব্যাংকঃ বিশেষ খাতের উন্নয়নের জন্য যে সব ব্যাংক প্রতিষ্ঠা লাভ করে তাকে বিশেষায়িত ব্যাংক বলে। রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত ব্যাংক ২ টি।
১। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
২। রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
অ-তফসিলী ব্যাংকঃ যে সকল ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ম-নীতি মেনে চলার শর্তে এর তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয় না তাকে অ-তফসিলী ব্যাংক বলে। দেশে ৬ টি অ-তফসিলী ব্যাংক রয়েছে।
1. আনসার ভিডিপি উন্ন্য়ন ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
2. কর্মসংস্থান ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
3. প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
4. জূবিলী ব্যাংক
5. গ্রামীণ ব্যাংক (আধা-সরকারী)
6. পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক (রাষ্ট্রায়ত্ত)
মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রামাণ্য চলচ্চিত্র
চলচ্চিত্রের নাম – পরিচালক
Stop Genocide জহির রায়হান
A State is Born জহির রায়হান
Liberation Fighters আলমগীর কবির
Innocent Fighters বাবুল চৌধুরী
মুক্তির গান তারেক মাসুদ ও ক্যাথরিন মাসুদ
মুক্তির কথা তারেক মাসুদ ও ক্যাথরিন মাসুদ
স্মৃতি’৭১ তানভির মোকাম্মেল ।

মুক্তিযুদ্ধোত্তর পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র
=================
চলচ্চিত্রের নাম – পরিচালক
ওরা ১১ জন (১৯৭২) -চাষী নজরুল ইসলাম
সংগ্রাম (১৯৭৪) -চাষী নজরুল ইসলাম
হাঙর নদী গ্রেনেড -চাষী নজরুল ইসলাম
আবার তোরা মানুষ হ (১৯৭৩) -খান আতাউর রহমান
এখনও অনেক রাত (১৯৯৭) -খান আতাউর রহমান
রক্তাক্ত বাঙ্গালি -মমতাজ বাঙ্গালি
ধীরে বহে মেঘনা -আলমগীর কবির
রূপালী সৈকত -আলমগীর কবির
কলমী লতা -শহীদুল হক খান
বাঘা বাঙ্গালি -আনন্দ
কার হাসি কে হাসে -আনন্দ
আগুনের পরশমনি -হুমায়ূন আহম্মেদ
ইতিহাস কন্যা -শামীম আখতার
আমার জন্মভূমি -আলমগীর কুমকুম
আলোর মিছিল -নারায়ণ ঘোষ মিতা
মেঘের অনেক রং -হারুনুর রশিদ
স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র
চলচ্চিত্রের নাম পরিচালক
একাত্তরের যীশু -নাসির উদ্দীন ইউসুফ
নদীর নাম মধুমতি -তানভীর মোকাম্মেল
হুলিয়া -তানভীর মোকাম্মেল
প্রত্যাবর্তন -মোস্তফা কামাল
পতাকা -এনায়েত করিম বাবুল
আগামী -মোরশেদুল ইসলাম
দুরন্ত -খান আখতার হোসেন
একজন মুক্তিযোদ্ধা -দিলদার হোসেন
ধূসর যাত্রা -আবু সায়ীদ
বখাটে -হাসিবুল ইসলাম হাবিব
শরৎ একাত্তর -মোরশেদুল ইসলাম
Length, Width & Duration
—————-
1. Length of Padma Bridge is — 6.15 km
2. Width of Padma Bridge is — 18.10 m.
3. Length of Jamuna Bridge is —- 4.8 km.
4. Width of Jamuna Bridge is — 18.50 m.
5. Length of Cox’s Bazar–Tekhnaf marine drive is— 80km (World’s longest)
6. Length of Proposed karnofuli tunnel— 3.4 km
7. Length of Dhaka Metro rail (MRT)—20.10km
8. Length of BRT (Bus Rapid Transit)— 20.5km
9. Duration of 7th Five year plan——2016-2020
10. Duration of Perspective Plan—–2010-2021(vision-2021)
11. Duration of SDG—-2016-2030

সাম্প্রতিক তথ্য
১/ ২০১৮-১৯ অর্থবছরের মোট বাজেট – ৪,৬৪,৫৭৩ কোটি টাকা।
২/বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি- ১,৭৩,০০০ কোটি টাকা
৩/ সর্বোচ্চ বরাদ্দ- জনপ্রশাসন-৮৩,৫০৯ কোটি টাকা
৪/ ADP বাস্তবায়ন – ৯৩.৭১%
৫/ বিশ্ব ব্যাংক কর্তৃক রোহিঙ্গাদের জন্য অনুদান – ৪৮ কোটি ডলার।
৬/ সংবিধানের ১৭ তম সংশোধনী হয়- ৮ জুলাই ২০১৮
৭/ সংশোধিত অনুচ্ছেদ – ৬৫(৩)
৮/১৭ তম সংশোধনী অনুসারে নারী আসন বহাল থাকবে- ২৫ বছর।
১১/ ২২ তম বিশ্বকাপ ফুটবল- কাতার (২০২২)
১০/ ২৩ তম বিশ্বকাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হবে- যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও মেক্সিকোতে ( NAFTA)-২০২৬ সাল।
১১/ ২৩ তম ফুটবল বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করবে -৪৮ টি দেশ।
১২/ বর্তমানে ২১ তম বিশ্বকাপের শততম গোলদাতা- লিওনেল মেসি
১৩/ অনুষ্ঠিতব্য ফাইনাল ম্যাচ-১৫ জুলাই, লুঝনিকি স্টেডিয়াম, রাশিয়া।
১৪/ রাশিয়া আসরের থিম সং- লিভ ইউ আপ এবং ফুটবলের নাম Telstar 18
১৫/ বর্তমান বাজেটে কৃষি, শিল্প ও সেবা খাতের অবদান যথাক্রমে ১৪.১০, ৩৩.৭১ ও ৫২.১৮ শতাংশ।
১৬/ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে দেশ হিসেবে বাংলাদেশ- ৫৭ তম।
১৭/ প্রস্তুতকারক – থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস, ফ্রান্স।
১৮/ গ্রাউন্ড স্টেশন – গাজীপুর ও বেতবুনিয়া।
১৯/ ১১ তম ক্রিকেট বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে- ইংল্যান্ড
২০/ মার্সার তথ্য মতে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর- হংকং।
২১/ ইকোনমিস্ট ইনটেলিজেন্স তথ্য অনুসারে সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর – সিঙ্গাপুর সিটি
২২/ বৈশ্বিক শান্তি সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান- ৯৩ তম (১ম- আইসল্যান্ড)
২৩/ ইউনেস্কো এর জরিপে sweetest language in the world হিসেবে নির্বাচিত- বাংলা
২৪/ ফোর্বসের মতে বিশ্বের ক্ষমতাধর ব্যক্তি- শি জিনপিং (চীন), ২য়-ভ্লাদিমির পুতিন, ৩য়- ট্রাম্প
২৫/ সিঙ্গাপুর ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জরিপে বিশ্বের ২য় সেরা প্রধানমন্ত্রী- শেখ হাসিনা, ১ম – নরেন্দ্র মোদি (ভারত)
২৬/ সারা বিশ্বে বাল্যবিবাহের হারে বাংলাদেশের অবস্থান – ৪র্থ
২৭/ ফোর্বসের মতে বিশ্বের সেরা ধনী- জেফ বেজোস ( আমাজন প্রতিষ্ঠাতা)
২৮/ সুখী দেশের তালিকায় ১ম স্থানে রয়েছে- ফিনল্যান্ড। বাংলাদেশ-১১৫তম
২৯/ গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে বাংলাদেশ-৯২ তম, ১ম- নরওয়ে।
৩০/ গড় আয়ুতে শীর্ষ দেশ জাপান (৮৩.৭), সর্বনিম্ন দেশ- সিয়েরা লিওন।
৩১/ কানাডার পার্লামেন্টে ১ম বাংলাদেশী হিসেবে নির্বাচিত এমপি- ডলি বেগম (ডেমোক্রেটিক পার্টি)
৩২/ বর্তমানে চালু সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা- ৪১টি, সর্বশেষ- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি।
৩৩/ “শেখ মুজিব আমার পিতা ” বইটির লেখক- শেখ হাসিনা।
৩৪/ বাংলাদেশের ১ম ওয়াইফাই নগরী- সিলেট।
৩৫/ ২০১৭ সালে সেরা বাঙালি নির্বাচিত হন- মাশরাফি বিন মুর্তজা।
৩৬/ ৭ম এশিয়া নারী বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন
-বাংলাদেশ। ম্যান অব দ্য ম্যাচ- রুমানা এবং ম্যান অব দ্য সিরিজ- হারমানপ্রীত কাউর (ভারত)
৩৭/ ৭ মার্চের ভাষণ (world documentary heritage) অনূদিত হয়- ১২ টি ভাষায়।
৩৮/ বিশ্বের ক্ষমতাধর ১০০ নারীর তালিকায় বর্তমানে শেখ হাসিনার অবস্থান- ৩০ তম, টাইম ম্যাগাজিন অনুসারে লিডার ক্যাটাগরিতে ২১ তম।
৩৯/ বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপি- জাবেদ পাটোয়ারী।
৪০/ ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশী বংশদ্ভুত- বিপ্লব দেব।
৪১/ ২০১৮ তে যে বিষয়ে নোবেল প্রদান করা হবে না- সাহিত্য।
৪২/ বাংলাদেশের জরুরি সেবায় ব্যবহৃত হেল্পলাইন-৯৯৯
৪৩/ বিশ্ব বিনিয়োগ প্রতিবেদন অনুসারে বাংলাদেশে বিনিয়োগে শীর্ষ দেশ- যুক্তরাজ্যে
৪৪/ ব্যালন ডি’অর ২০১৭ ও ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কার ২০১৭ লাভ করেন – ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো
৪৫/ বাংলাদেশের ১২ তম নির্বাচন কমিশনার- নুরুল হুদা, ২১ তম রাষ্ট্রপতি- আব্দুল হামিদ, ২২ তম বিচারপতি- মাহমুদ হোসেন।
৪৬/ যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫ তম প্রেসিডেন্ট- ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং জাতিসংঘের ৯ম মহাসচিব- অ্যান্তোনিও গুতেরেস (পর্তুগাল)
৪৭/ বাংলাদেশের গড় আয়ু ৭১.৬ বছর এবং স্বাক্ষরতার হার ৭১%
৪৮/ ট্রাম্প ও উন বৈঠক- ১২ জুন, সান্তোসা দ্বীপ, সিঙ্গাপুর।
৪৯/ EPA প্রতিবেদন অনুসারে বিশ্বের শীর্ষ দূষিত বায়ুর দেশ – নেপাল।
৫০/ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস – ১১ জুলাই
৫১/ WTA টেনিস টুর্নামেন্টে জয় লাভ করেন- ক্যারোলিন ওজনিয়াক
৫২/ মধ্যপ্রাচ্য গ্যাস রপ্তানিতে শীর্ষ দেশ – কাতার
৫৩/ সামরিক ব্যায়ে শীর্ষ দেশ- যুক্তরাষ্ট্র।
৫৪/ ১ম 4G সেবা চালু করে- দক্ষিণ কোরিয়া (২০০৬)
বাংলাদেশ-১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
৫৫/ যুক্তরাষ্ট্রের নতুন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী- মাইক পম্পেও।
৫৬/ ভ্লাদিমির পুতিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে এ পর্যন্ত নির্বাচিত হয়েছেন- ৪ বার।
৫৭/ ইউরোপে পোশাক রপ্তানিতে ২য় শীর্ষ- বাংলাদেশ
৫৮/ শেখ হাসিনা সফটওয়্যার পার্ক- যশোর।
৫৯/ রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিতে ভেটো প্রদানকারী দেশ- চীন ও রাশিয়া।
৬০/ জাতীয় গণহত্যা দিবস – ২৫ মার্