Shampa arrested on Nusrat’s death

ফেনী প্রতিনিধি: শম্পা নুসরাতের ক্লাসমিট। সোনাগাজী মাদ্রাসায় একই ক্লাসে পড়ে তারা। মূলত নুসরাতের গায়ে সে আগুন দেয়। নুসরাতকে ডেকে ছাদে নেওয়ার কাজটি সে করে থাকে। এরপর আগুন দিতে সাহায্য করেন। অবশেষে সে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন।

জানা গেছে, অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন সেদিনের ঘটনায়। কিন্তু প্রশাসনিক কার্যক্রমের জন্য এসব বিষয়ে মুখ খুলেনি পুলিশ।

Join our Facebook Group Get job update & discuss about Job related Topics.

Like Our Page&Facebook Group

 

যদিও এর আগে নুসরাতের বান্ধবী নিশাত সেদিনের আগুনের ঘটনা নিয়ে মিডিয়ায় মুখ খুলেছিলেন। বলেছিলেন,‘এটা ২৭ তারিখেল ফলাফল। আমি আমার হলে ছিলাম। আমার হল ছিল ১০ নাম্বার। আর ওর ৮ নাম্বার। তাই বুঝতে পারিনি। আর ওর সাথে ছাদেও যেতে পারিনি।’

মূলত ২৭ তারিখ প্রেন্সিপাল সিরাজের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন রাফি ও তার দুই বান্ধুবি। সে জন্যই তার গায়ে আগুন দেয় বলে জানান নিশাত। বলেছেন, ‘উনার চরিত্র সম্পর্কে সবাইকে জানে। এ ব্যাপারে কেউই মুখ খুলতে চায়নি। আর নুসরাত খুলেছে সে জীবন দিয়েছে।’

নিশাত আরো বলেন, ‘২৭ তারিখে আমরা অভিযোগ দিই। এর পর আমরা আর কলেজে যাইনি। আমাদের ফোন দিয়ে কেউ হুমকিও দেয়নি।’

নুসরাতের হত্যাকারী পপি ওরফে সম্পা গ্রেফতার | সে নুসরাতের গায়ে আগুন লাগানোতে সরাসরি জড়িত ছিলো।

Posted by Sultan Mahfuj Mokem on Tuesday, April 16, 2019